শিক্ষা, প্রযুক্তি ও উদ্ভাবনে দক্ষিণ এশিয়ায় সবার পেছনে বাংলাদেশ

শিক্ষা, প্রযুক্তি ও উদ্ভাবনে দক্ষিণ এশিয়ায় সবার পেছনে বাংলাদেশ

ঢাকা অফিস : দক্ষিণ এশিয়ায় শিক্ষা, প্রযুক্তি ও উদ্ভাবনে সবার পেছনে রয়েছে বাংলাদেশ। গ্লোবাল নলেজ ইনডেক্স ২০২০ এ  তথ্য জানানো হয়। বুধবার প্রকাশিত সূচকে দেখা যায়, ১৩৮টি দেশের মধ্যে ১১২তম অবস্থানে বাংলাদেশ। আর দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান সবচেয়ে পেছনে। সূচকটি তৈরিতে শিক্ষা, প্রযুক্তি, উন্নয়ন ও উদ্ভাবনসহ সাতটি বিষয়কে বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে।  যদিও ২০১২ সালের তুলনায় বাংলাদেশ বিভিন্ন চলকে ০.৯ পয়েন্ট উন্নীত করে মোট ৩৫.৯ পয়েন্ট অর্জন করেছে; তারপরও এটি বৈশ্বিক গড় পয়েন্ট ৪৬.৭ এর চেয়ে অনেক কম। ২০১২ সালেও গ্লোবাল নলেজ ইনডেক্সে বাংলাদেশের অবস্থান ১১২তম ছিল। গত বুধবার দুবাইয়ে অনুষ্ঠিত এক সম্মেলনে জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি (ইউএনডিপি) ও মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মাকতুম নলেজ ফাউন্ডেশন যৌথভাবে ২০২০ সালের গ্লোবাল নলেজ ইনডেক্স (জিকেআই) প্রকাশ করে।
এ বছর গ্লোবাল নলেজ ইনডেক্সের তালিকায় ৭৩ দশমিক ৬ স্কোর নিয়ে শীর্ষে সুইজারল্যান্ড। এ নিয়ে টানা চতুর্থবারের মতো দেশটি শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে। তালিকায় ৭১ দশমিক ১ স্কোর নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র দ্বিতীয় ও ৭০ দশমিক ৮ স্কোর নিয়ে ফিনল্যান্ড তৃতীয় অবস্থানে।
অন্যদিকে, ৪৪ দশমিক ৪ স্কোর নিয়ে বিশ্বে ৭৫তম ও দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে এগিয়ে আছে ভারত।  এরপরই ৪২.১ স্কোর নিয়ে বিশ্বে ৮৭তম ও দক্ষিণ এশিয়ায় দ্বিতীয় অবস্থানে আছে শ্রীলঙ্কা।দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ৪০.৯ স্কোর নিয়ে ভুটান তৃতীয়, ৩৬.২ স্কোর নিয়ে নেপাল চতুর্থ ও ৩৫.৯ স্কোর নিয়ে পঞ্চম অবস্থানে আছে পাকিস্তান। আর সূচকে ৩৫.৯ স্কোর নিয়ে দক্ষিণ এশিয়ার সবার নিচের অবস্থানে বাংলাদেশ।
সূচকটি তৈরিতে শিক্ষা, প্রযুক্তি, উন্নয়ন ও উদ্ভাবনসহ সাতটি বিষয়কে বিবেচনা করা হয়েছে। এটি সাতটি সেক্টরের অধীনে ১৩৩টি চলকের (ভেরিয়েবল) উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়ে। এগুলো হলো- প্রাক-বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষা, প্রযুক্তিগত ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা এবং প্রশিক্ষণ, উচ্চশিক্ষা, গবেষণা, উন্নয়ন ও উদ্ভাবন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি, অর্থনীতি এবং সাধারণ সহায়ক পরিবেশ।
অবাক করার মত বিষয় হচ্ছে, বাংলাদেশের চেয়েও ৪ বছর পরে স্বাধীনতাপ্রাপ্ত ভিয়েতনাম এই তালিকার ৬৬তম অবস্থানে রয়েছে।বাংলাদেশ প্রাক-বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষা সেক্টরে ৪৩.৯ স্কোর পেয়েছে।  প্রযুক্তিগত ও বৃত্তিমূলক শিক্ষায় বাংলাদেশের স্কোর ৪৯।অন্যদিকে, উচ্চশিক্ষা সেক্টরে বাংলাদেশের অবস্থান সবচেয়ে নাজুক, এই সেক্টরে বাংলাদেশের স্কোর ২৪.১। 
এছাড়াও গবেষণা, উন্নয়ন ও উদ্ভাবন খাতে বাংলাদেশের স্কোর ১৬.৪, আইসিটি সেক্টরে স্কোর ৪৩.১, অর্থনীতি সেক্টরে বাংলাদেশের স্কোর ৩১.৫ এবং সাধারণ সহায়ক পরিবেশ ৪৬.৪।গ্লোবাল নলেজ ইনডেক্স ২০২০ এর তালিকায় শীর্ষ ১০টি দেশ হলো- সুইজারল্যান্ড, যুক্তরাষ্ট্র, ফিনল্যান্ড, সুইডেন, নেদারল্যান্ডস, লুক্সেমবার্গ, সিঙ্গাপুর, ডেনমার্ক, যুক্তরাজ্য এবং হংকং ও চীন (যৌথ)।